Header Border

ঢাকা, শনিবার, ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ ইং | ১১ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (শরৎকাল) ৩০°সে

শোকের মাস আগস্ট, সব শোকের শেষ আছে, আগস্টের নেই

মোঃ ইব্রাহিম হোসেন, ষ্টাফ রিপোর্টারঃ বাঙ্গালীর অবিসংবাদিত নেতা, স্বাধীনতার অগ্রনায়ক, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মোহনবাশীর সুরকার, যে বাশীর সুরে সাড়ে সাত কোটি বাঙ্গালী জেগে উঠে ছিলো। কত শত উপাধিতে ভুষিত করা যায়, মনের স্বাদ মিঠবেনা আমরা যারা দেখেছি, জনকের হাতের ছুয়া পেয়েছি। আমাদের কাছে আগস্ট নাই, প্রতিদিনই শোকের ছায়া পরে মনে। ৩২ নম্বর দিয়ে হেটে যেতে হয়, কিছুটা গাছের ছায়া বসতে হয়। মনে পরে কত শত কথা। ৩২ নম্বর রোডের নাম হওয়ার পরেও জনকের বাড়ীর নম্বর হয়ে গেছে। বাড়ী ও লেক সেই স্থানেই আছে। নাই শুধু জনক, মনকে বুজাতে পারিনা, এইতো এখান দিয়ে বাড়ীতে প্রবেশ করেছে, এই লেকের পাড়ে শত শত মানুষ অপেহ্মায় ছিলো কত শত অভিযোগ, আবদার নিয়ে। বেলকনিতে দারিয়ে কত না সমস্যার সমাধান করতে হয়েছে। কত কিছুই না দেখেছি, আজ নিজের কাছেই অবিশ্বাস্য মনে হয়। একজন মানুষের পহ্মে কি সম্বব। প্রকাশ্যের সমাধান দেখেছি, খাওয়ার সময়ও নাকি অনেক কাগজে স্বাহ্মর করতে হয়েছে। আমি সব সময় অভাগ হয়ে দেখি আর ভাবি এই বাড়ীটা রাষ্ট্রপতি, প্রধান মন্ত্রী থাকতো, অবিশ্বাস্য হলেও সত্য। ফেরিওয়ালা, পথচারী বাড়ীর গেটের ভিতরে ডুকে পানি আনছে, লেকের পারে বসে বাদাম চিবুচ্ছে, ঝালমুড়ি, আমড়া, কামরাঙা কত না কি খাচ্ছে, একজন প্রধান মন্ত্রীর বাড়ীর সামনে। কি বলবেন, জাতির জনকের পরে এ দেশে অনেকেই রাষ্ট্রপতি, প্রধান মন্ত্রীর আসনে বসেছেন, ফেরিওয়ালা গেটে ডুকে পানি আনা দুরে থাক, গেট থেকে একশত হাত দুরের পরিলহ্মিত হয় না। আগস্টেই কেঁদে মন পরিস্কার হয় না। আগস্টের কান্নায় চাদাবাজির পরিকল্পনা থাকে, শোক পালনে পুঁজি যোগারের ফন্দি থাকে, কাঁদে শুধু শেখ হাসিনা, শেখ রেহানা। এ কান্নাও হায়ানার দল কেরে নিতে, থামিয়ে দিতে চেয়েছিলেন ২১ আগস্ট সৃষ্টি করে। কেরে নিয়েছে আইভি রহমান, মেয়র হানিফ সহ অপুরনিয় নেতার নেতৃত্বকে। শোকের শেষ কোথায় ? আগস্ট নিয়ে মুজিব জন্মশতবার্ষিকীতে আমাদেরকে লহ্ম রাখতে হবে ১৫ আগস্টের ব্যবসায়ীদের কে। বাঙ্গালী জাতির শোক নিয়ে যারা ব্যবসায়ী দৃষ্টিতে পরিনত হয়েছে, তাদেরকে প্রতিহত, প্রতিরোধ করতে না পারলে মজিব জন্মশতবার্ষিকীর সফলতা মানব সেবা আমরা জাতিকে উপহার দিতে পারবোনা। মুজিব আর্দশ বাঙ্গালী অর্জন করতে না পারলে, বিস্তার করতে না পারলে স্বাধীনতা হবে অর্থহীন। মানুষ, মানুষের জন্য। দেশের জাতির উন্নয়ন মানুষের জন্য। ব্যাক্তি ধোনী না হয়ে রাষ্ট্র ধোনী হতে হবে। রাষ্ট্রকে আমরা অর্থশালী করতে না পারলে, ব্যাক্তি অর্থের স্থায়ীত্ব হবে না। ব্যাক্তির অর্থদিয়ে জাতিকে পরিবর্তন করা যায় না। আমরা অনেক ধনশালী ব্যাক্তিকে জাকাতের নাটক করতে দেখি, পরিবর্তন লহ্ম করিনা। মুজিব জন্মশতবার্ষিকীতে আমাদের দায়ীত্ব বাংলার প্রতিটি মানুষকে মুজিব আদর্শে গড়ে তোলা। মাদকের সাম্রাজ্য গুঁড়িয়ে দেওয়া, অপসংস্কৃতি প্রতিরোধ করা, দলকে সুদ্ধি অভিযানের আওতায় আনা, প্রশাসন আর রাজনীতিকে আলাদা করা, বাঙ্গালী জাতিয়তাবাদ কে পুনঃজীবন দান করা। জাতির জনকের আত্নজীবনী, আমার দেখা নয়াচিন, কারাগারে রোজনামচা থেকে জাতিকে উদ্ভিদ করা। প্রতিটি কর্মসুচি বাঙালি সংস্কৃতির মাধ্যমে পরিবেশন করা হবে আমাদের অঙ্গিকার।

লেখকঃ বিশিষ্ট সাংবাদিক ও লেখক এবং বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব ও রাজধানী মোহাম্মদপুর থানার ৩৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি জনাব রবিউল আলম।

আপনার মতামত লিখুন :

আরও পড়ুন

নেটওয়ার্ক মার্কেটিং এর মাধ্যমে বেকারত্ব দূর করা সম্ভব
১০ দিন পর ফেরি চালু, রাতে ফের বন্ধ
‘ব্যারিস্টার আসিফ-সাবরিনার প্রেমের বিয়ে মেনে নেয়নি পরিবার’
যেসব কারণে ঘটে এসি বিস্ফোরণ, রক্ষা পাওয়ার উপায়
পাকিস্তানে ধর্ম অবমাননা আইনের বলি হবে আর কতোজন?
কুষ্টিয়া জেলার সকল পুলিশ অফিসারদের নিয়ে পুলিশ সুপার এর ব্রিফিং




আরও খবর







Design & Developed BY Raytahost.com